নিজস্ব প্রতিবেদক:প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস কেড়ে নিল দেশবরেণ্য গুণী ব্যক্তিত্বের অধিকারী কামাল লোহানীকে। তিনি অনেক গুণের অধিকারী ছিলেন।

শনিবার (২০ জুন) সকালে ১০টায় শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ওই হাসপাতালের প‌রিচালক অধ্যাপক ডা. ফারুক আহমদ তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক,বুদ্ধিজীবী,শিক্ষাবিদ, লেখক কামাল লোহানীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি এডভোকেট আব্দুল হামিদ,মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা,মন্ত্রী,শিক্ষাবিদ, রাজনৈতিক,মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নেতৃবৃন্দ সহ বিভিন্ন সামাজিক ব্যক্তি শোক জানান। শোক বার্তায় জানান, স্বাধীনতা আন্দোলন ও দেশ প্রতিষ্ঠায় তার অবদান অতুলনীয়। তিনি এদেশের একজন বুদ্ধিজীবী ছিলেন।

তার সম্পর্কে সাবেক ছাত্রনেতা ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপকমিটির সদস্য তসলিম উদ্দিন রানা বলেন শ্রদ্ধেয় কামাল লোহানী একজন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক,লেখক,শিক্ষাবিদ ও বুদ্ধিজীবী ছিলেন।মুক্তিযুদ্ধে তার অবদান অতুলনীয়।সাম্প্রদায়িক ও গনতান্ত্রিক আন্দোলনে তার ভুমিকা অতুলনীয়।তার মত দেশপ্রেমিক বুদ্ধিজীবীর মৃত্যুতে গুনীজন হারাল আর দেশ হারাল একজন দেশপ্রেমিক ও মুক্তিযোদ্ধার সংগঠক।আল্লাহ তাকে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করুন আমিন।

এদিকে বাবার মৃত্যু বিষয়টি নিশ্চিত করে কামাল লোহানীর ছেলে সাগর লোহানী ফেসবুকের এক স্ট্যাটাসে লেখেন, ‘ধরে রাখতে পারলাম না। চলে গেলেন কামাল লোহানী’।

দীর্ঘদিন থেকে বার্ধক্যজনিত নানা সমস্যায় ভুগছেন কামাল লোহানী। গত মাসেও অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন তিনি। শুক্রবার (১৯ জুন) জানা যায়, তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। ভাইরাসের সংক্রমণ ও বার্ধক্যজনিত অসুস্থতার কারণে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে আইসিইউতে নেয়া হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন দেশের বরেণ্য এ সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব।

১৯৩৪ সালের ২৬ জুন সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া থানার সনতলা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন কামাল লোহানী। কামাল লোহানী হিসেবে পরিচিত হলেও, তার পুরো নাম আবু নঈম মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল খান লোহানী। দৈনিক মিল্লাত পত্রিকা দিয়ে সাংবাদিকতা শুরু করেন তিনি। এরপর তিনি আজাদ, সংবাদ, পূর্বদেশ, দৈনিক বার্তায় গুরুত্বপূর্ণ পদে কাজ করেছেন। ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে দুইবার মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করেছেন কামাল লোহানী। এছাড়া তিনি উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সভাপতি হিসেবে এবং ছায়ানটের সম্পাদক হিসেবে চার বছর করে দায়িত্ব পালন করেন।

কামাল লোহানী উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটি ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটেরও উপদেষ্টা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here