ডেস্ক রিপোর্ট  কুমিল্লায় গত ২৪ ঘন্টায় রেকর্ড সংখ্যক ক’রোনা রুগী শ’নাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে কুমিল্লার দেবীদ্বারে ১৯ জন ক’রোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে। উপজে’লার মোগসাইর গ্রামে ক’রোনায় আ’ক্রান্ত হয়ে লিল মিয়া নামের এক ফল ব্যবসায়ীর মৃ’ত্যু হয়।

ওই ব্যক্তির স্বজন ও প্রতিবেশীদের মধ্যে ১৫ জন ক’রোনায় আ’ক্রান্ত হয়েছেন। ক’রোনায় আ’ক্রান্ত অন্যদের মধ্যে দেবীদ্বার থা’না পু’লিশের তিনজন ও গুণাইঘর গ্রামের একজন রয়েছেন। এ পর্যন্ত উপজে’লায় মোট আ’ক্রান্ত ৬১ এবং মা’রা গেছেন সাতজন।

বুধবার রাতে এ ১৯ জন ক’রোনা পজিটিভ রিপোর্টে আসে। এর আগে বুধবার সকালে কুমিল্লার মুরাদনগরে একই বাড়ির ৮ জনসহ কুমিল্লায় নতুন করে আরো ১২ জন ক’রোনায় আ’ক্রান্ত হয়।

সব মিলিয়ে বুধবার ৩১ জন ক’রোনা রুগী শ’নাক্ত হন। যা এযাবৎ কালে সবচেয়ে বেশি। এই নিয়ে জে’লায় মোট আ’ক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১৯০ জনে।

জানাগেছে বুধবার রাতে দেবীদ্বারের মোট ৪৯ জনের রিপোর্টে আসে। তার মধ্যে ইউসুফপুর ইউনিয়নের মোগসাইর গ্রামের আ’ক্রান্তদের ১৫ জন সম্প্রতি ক’রোনায় মৃ’ত লীল মিয়ার স্বজন ও প্রতিবেশী।

ফল ব্যবসায়ী লীল মিয়া ফেনী থেকে তরমুজ আনতে গিয়ে ক’রোনায় আ’ক্রান্ত হন বলে জানা গেছে। পরবর্তীতে তার থেকে পরিবার ও প্রতিবেশীরা আ’ক্রান্ত হয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

গত ৭ মে ক’রোনায় আ’ক্রান্ত হয়ে লীল মিয়া মা’রা যান। তিনি স্থানীয় এগারগ্রাম বাজারে ফলের ব্যবসা করতেন। রোববার তার পরিবার এবং প্রতিবেশী ১৮ জনের নমুনা সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য বিভাগ, যার মধ্যে ১৫ জন আ’ক্রান্ত পাওয়া যায়।

এছাড়া ক’রোনায় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে দেবীদ্বার থা’নার তিন পু’লিশ সদস্য কভিড-১৯ এ আ’ক্রান্ত হয়েছেন। তাদের স্থানীয় একটি স্কুলে আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে।

এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন দেবীদ্বার উপজে’লা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মক’র্তা ডা. আহাম্ম’দ কবীর। এদিকে ক’রোনা সং’ক্রমণে অতিরিক্ত ঝুঁ’কিপূর্ণ হয়ে পড়ায় মোগসাইর গ্রাম ও এগারগ্রাম বাজার লকডাউন ঘোষণা করেছে উপজে’লা প্রশা’সন।

পু’লিশ ও সেনবাহি’নীর সহায়তায় পাশের এলাকা থেকে গ্রামটি সম্পূর্ণ বি’চ্ছিন্ন করে দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। উপজে’লা নির্বাহী অফিসার রাকিব হাসান জানান, একজন ব্যক্তির সং’ক্রমণ থেকে ১৫ জন আ’ক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি অ’ত্যন্ত উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার। জনগণকে সচেত’ন করার জন্য প্রশা’সন সর্বোচ্চ করছে।

তিনি সবাইকে ঘরে থাকার আহ্বান জানিয়ে আরও বলেন, এ সং’কটময় সময়ে সবাইকে সচেতন ও স’তর্ক থেকেই পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে। অতি প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হবে না।

অপরদিকে বুধবার সকালে আ’ক্রান্তদের মধ্যে মুরাদনগর উপজে’লায় ১০ জন। এই ১০ জনের মধ্যে আবার একই বাড়িরই রয়েছে ৮ জন। আর অপর ২ আ’ক্রান্ত হলো নাঙ্গলকোট উপজে’লায়।

নাঙ্গলকোটে দৌলখাঁড় ইউনিয়নে ২ জন আ’ক্রান্ত হয়েছে। এছাড়া কুমিল্লা নগরীর ছাতিপট্টি এলাকার একজন কুমিল্লা মেডিকেলে আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি অবস্থায় আ’শঙ্কাজনক হওয়ায় ঢাকা নেওয়া পথে মা’রা যান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here