জহির শান্ত: কুমিল্লায় শুক্রবার এক দিনে আরো ১১৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো জেলায় একদিনে শতাধিক কোভিড রোগী শনাক্ত হলো। এর আগে গত বৃহস্পতিবার ( ৪ জুন) ১০৫ জন এবং ৩১ মে (রবিবার) ১০৪ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয় কুমিল্লায়। শুক্রবার (৫ জুন) রাত ৯টায় জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে আক্রান্তের এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।
সব মিলিয়ে গতকাল পর্যন্ত কুমিল্লা সিটি করপোরেশন এলাকাসহ জেলার ১৭টি উপজেলায় মোট ১ হাজার ৩৯১ জনের করোনা শনাক্ত হলো। এর মধ্যে মারা গেছেন ৪২ জন। শুক্রবারও কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে দু’জনের মৃত্যুর তথ্য দেয় জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। আর সব মিলে জেলাজুড়ে আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১৯৪ জন।
শুক্রবার আক্রান্তদের মধ্যে চান্দিনায় ৫ জন, হোমনায় ২জন, দাউদকান্দিতে ১১, লাকসামে ১৪, চৌদ্দগ্রামে ২২, দেবিদ্বারে ১৩, বুড়িচংয়ে ৯, বরুড়ায় ৩, সদর দক্ষিণে ৬, ব্রাহ্মণপাড়ায় ৩, মেঘনায় ৩, মুরাদনগরে ২, লালমাই উপজেলায় ১জন এবং কুমিল্লা সিটি করপোরেশন ২২ রয়েছেন বলে জানা গেছে।
এর মধ্যে ২৪ ঘন্টায় প্রাণ হারিয়েছেন দু’জন। তাদের বাড়ি দেবীদ্বার ও ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলায়। দেবীদ্বার উপজেলায় ১০ জন সুস্থ হয়েছেন।
জানা গেছে, গতকাল কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজের পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষা করা নমুনার মধ্যে ১০৯টির ফল পজেটিভ আসে। আর ঢাকার আইসিডিডিআরবিতে পরীক্ষা করা ৮৪টি নমুনার মধ্যে ৭টির ফল পজেটিভ এসেছে।
শুক্রবারও কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন এলাকায় যৌথভাবে সর্বোচ্চ ২২জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে নগরীর মুরাদপুরের একজন, জেলা প্রশাসক অফিসের ৩ জন, মোগলটুলির একজন, দ্বিতীয় মুরাদপুরের একজন চিকিৎসক, শাকতলার একজন, বারপাড়ার একজন, বাগিচাগাঁয়ের একজন, আলেখারচর উত্তরপাড়ার একজন, বাঁশমঙ্গলের একজন, জগন্নাথপুরের একজনের করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।
কুমিল্লার ডেপুটি সিভিল সার্জন সাহাদাত হোসেন বলেন, এ পর্যন্ত মোট ১১ হাজার ৪৯৯ জনের নমুনা পাঠানো হয়। এর মধ্যে প্রতিবেদন এসেছে ১০ হাজার ১০ জনের।
আবারো একদিনে শতাধিক আক্রান্তের বিষয়ে তিনি বলেন, কুমিল্লার কমিউনিটিতে করোনা দ্রুত সংক্রমিত হচ্ছে। ব্যক্তি, দল, গোত্র, পাড়া, মহল্লা, গ্রাম, ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, পৌরসভা, উপজেলা, সিটি করপোরেশনের বাসিন্দাদের নিজেদের ও অন্যদের সুরক্ষার জন্য স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। এটা না মানলে পরিস্থিতি খারাপ হওয়ার শঙ্কা রয়েছে। লাফিয়ে লাফিয়ে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here