চাঁদপুরে মতলব উত্তর উপজেলার ছেংগারচর বাজার দর্জি বাজারের অগ্রনী ব্যাংকের নিচে মোশারফের লেডিস কর্নার নামে একটি টেইলার্স দোকান ও সুমনের মোবাইল সার্ভিস এর দু’টি দোকান আগুন লেগে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।১৬ মার্চ মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার সময় এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটে।

খবর পেয়ে স্থানীয় জনগণ ও বাজারের ব্যবসায়ীরা রাত ১২টার দিকে আগুন নেভাতে সক্ষম হয়। তবে এর আগেই বাজারের ২টি দোকান পুড়ে যায়। ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিটের সদস্যরা সেচ পাম্প মেশিনের সাহায্যে পানি দিয়ে রাত ১২টা ৩৫ মিনিটের সময় আগুন নিয়ন্ত্রনে আনেন।

এ অগ্নিকাণ্ডে মোশারফ হোসেনের কাপড়েরর দোকানে প্রায় ৩০ লাখ টাকা, আর সুমন টেলিকম নামে মোবাইল সার্ভিস এর প্রায় ৫ লক্ষ টাকাসহ প্রায় ৩৫ লাখ টাকা ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার কর্তৃক জানা যায়।

এদিকে অগ্নিকাণ্ডের সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথেই মতলব উত্তর থানার ওসি মুহাম্মদ শাহজাহান কামাল তার অফিসার ও ফোর্স নিয়ে দ্রুত ছুটে আসেন ঘটনাস্থলে। স্থানীয় জনতা ও ব্যবসায়ীদের সাথে নিয়ে আগুন নিভাতে তিনি অনন্য ভুমিকা পালন করেন।

এছাড়া অগ্নিকাণ্ডের খবর পাওয়ার পর মতলব উত্তর উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্নেহাশীষ দাসও ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। এসময় ব্যবসায়ী শরীফ উল্লাহ দর্জি,উপজেলা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক রেফায়েত উল্লাহ দর্জি, ছেংগারচর পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শাহাদাত হোসেন খোকন ঢালী, ছেংগারচর পৌর বাজার বনিক সমবায় সমিতি লিঃ এর সাধারণ সম্পাদক মোঃ নাসির ফরাজী উপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, ছেংগারচর দর্জি বাজারের আবুল কাশেম মোল্লার চালের দোকানের সামেন বসে থাকা বরিশালের আইয়ুব আলী নামে এক পঙ্গু পাগলা প্রথমে মোবাইলের দোকানে আগুন দেখে চা দোকানদার কবিরকে সে সংবাদ দেন। এরপর কবির দ্রুত ছুটে মসজিদে গিয়ে ছেংগারচর দর্জি বাজার মসজিদের মুয়াজ্জিন মোঃ সাাইফুল আগুন লাগার সংবাদ মাইকে প্রচার করলে মতলব উত্তর থানার ওসি মুহাম্মদ শাহজাহান কামাল, উপজেলা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক রেফায়েত উল্লাহ দর্জি ও আশপাশের গ্রাম থেকে দ্রæত ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী বালীত নিয়ে দ্রুত ছুটে এসে প্রায় ৪০ মিনিটে তাদের প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আসে। এরপর ফায়ার সার্ভিস ইউনিট আসে। তারা ছেংগারচর ডিগ্রি কলেজ পুকুর থেকে সেচ পাম্প মেশিনের সাহায্যে পানি দিয়ে রাত ১২টা ৩৩ মিনিটের সময় আগুন পুরোপরি নিয়ন্ত্রনে আনেন।

স্থানীয়রা জানায় বাজারে ব্যবসায়ী সুমন টেলিকম মোবাইল সার্ভিস এর কারেন্টের সাহায্যে তেতলি দিয়ে গালানো লোহা থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহূর্তের মধ্যে আগুন ছড়িয়ে পড়ে পাশের মোশারফের কাপড়ের দোকানে।

স্থানীয় জনগন ও ব্যবসায়ীদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় আরও বড় ধরনের অগ্নিকান্ডের হাত থেকে রক্ষা পায়। নতুবা কোটি কোটি টাকার ক্ষয়-ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থাকতো। কেননা যে ভবনের নিচে আগুন লেগেছে তার দ্বিতীয় তলায় ছিলো অগ্রণী ব্যাংক। বাজারে পাগলেও যে উপকারে আসে তা প্রমান করলেন পঙ্গু পাগল আইয়ুব আলী। তিনি যদি সংবাদ না রদিতেন তাহলে ছেংগারচর বাজাওে ভয়াভহ অগ্নিকান্ড ঘটে যেতো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here