মোঃ রবিউল আলম

মতলব দক্ষিণ উপজেলার আলহাজ্ব তোফাজ্জ্বল হোসেন ঢালী উচ্চ বিদ্যালয়ে রেজিস্ট্রেশনের নামে মোটা অংকের বানিজ্যে অভিযোগ পাওয়া গেছে। করোনাকালীন সময়ে শ্রেণি কার্যক্রম না করেও শিক্ষার্থীদেরকে দিতে হচ্ছে বিভিন্ন অজুহাতের নামে অতিরিক্ত টাকা। জানা যায়, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাজহারুল হক ও স্কুল কমিটির যোগসাজশে হাতিয়ে নিচ্ছে মোটা অংকের টাকা। এতে বিপাকে পড়ছেন গ্রাম অঞ্চলের দরিদ্র শিক্ষার্থীরা। তাদের সহায় সম্বল ও কৃষি রবিশস্য বিক্রি করে দিতে হচ্ছে এ টাকা। বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ব্যবসায় শিক্ষার ছাত্র জাহিদ, রাকিবুল হাসান, শাহাদাত হোসেন, আয়েশা বেগম, বিজ্ঞান বিভাগের ফয়সাল ২৫’শ টাকা ও বাধন চৌধুরী দিয়েছেন ১৮’শ টাকা। মানবিক শাখার সুমনা তিনি দিয়েছেন ২ হাজার ২০ টাকা। বেতন, উন্নয়ন ফি ও রেজিষ্ট্রেশন ফিসহ এ সব টাকা নিয়েছেন। অনেক অভিভাবক ক্ষোভের সহিত বলেন, করোনা কালীণ সময়ে আমাদের হাতে ঐরকম টাকা নেই। তারপরেও তারা আমাদের ছেলে সন্তানদের কাছ থেকে অতিরিক্ত টাকা নিচ্ছেন। কেউ টাকা কম দিতে চাইলে রিসিট দিচ্ছেন না। প্রতিষ্ঠাতা সদস্য জাহাঙ্গীর আলম ঢালী বলেন, জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত তাদের অনেকের বেতন বাকী আছে। এজন্য এরকম টাকা নেওয়া হচ্ছে। এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক মাজহারুল হককে একাধিকবার ফোন দিয়েও পাওয়া যায় নি।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুর রহিম খান বলেন, করোনাকালীন সময়ে উপজেলার প্রত্যেক স্কুল কে রেজিষ্ট্রেশন ছাড়া অন্য কোন টাকা চাপ প্রয়োগ করে নেওয়া নিষেধ করা হয়েছে। তারপরেও বিষয়টি আমি খতিয়ে দেখব।

1 COMMENT

  1. ভাই আমি যেটুকু জানি,,,আমাদের মতলব দঃ শিক্ষা অফিসার আঃ রহিম স্যার পরিবর্তন হয়েছে,,,নতুন করে আরেকজন যোগদান করেছে,,,বিষয়টা কতটুকু সঠিক!!?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here