মোঃ তপছিল হাছান স্টাফ রিপোর্টার-
মতলব দক্ষিন উপজেলার নায়েরগাঁও উত্তর ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সেক্রেটারি কামরুল মোল্লা আওয়ামী লিগের বিভিন্ন ভূয়া সোসাইল মিডিয়া ফেসবুক পেজের মাধ্যমে কিছু ভিত্তিহীন মিথ্যা বানোয়াট বিদ্রান্তকর তথ্য প্রকাশিত করেন, কিন্তু বাংলাদেশের লাখো শহীদের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নৈতিক ও আদর্শবান ও দায়িত্ব নিয়ে পিতার আদর্শ কে মাথার মুকুট হিসাবে রেখে অক্ষরে অক্ষরে পালন করেন জননেত্রী শেখ হাসিনা তিনি জীবন বাজি রেখে সকল বাংলাদেশ নাগরিকদেরকে সেবা দিয়ে আসছে এবং অনেক কষ্টের বিনিময়ে এনালগ বাংলাদেশ থেকে ডিজিটাল বাংলাদেশ পরিনত করেন।
একদিকে সারা বিশ্বে কবি ১৯, মহামারী করোনা ভাইরাস দিন মজুরি থেকে শুর করে সকল শ্রেণির মানুষদের কে জেলা উপজেলা ও ইউনিয়ন ভিত্তিক প্রশাসনিক এবং জনপ্রতিনিদি দের মাধ্যমে পত্র পত্রিকা আইপি চ্যানেল ও ইলিক্ট্রিক মিডিয়াতে প্রচার প্রচারিত করা হয়েছে এবং চাঁদপুর ২ আসনের সংসদ সদস্য এডবোকেট রুহুল আমিন রুহুলের ও আওয়ামী লীগের ভাবভঙ্গি সুনাম নষ্ট করার জন্য আওয়ামী যুবলীগের নায়েরগাঁও উত্তর ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক কামরুল মোল্লা সরকারি ত্রান নিয়ে অপ-প্রচার করে আচ্ছে ।
সরে জমিনে গিয়ে জানা যায় গত ২০ই এপ্রিল থেকে শুরু করে আওয়ামী লিগের সুনাম নষ্ট করে আসছেন কামরুল মোল্লা কিন্তু সে নিজেই একজন দুষ্ট এবং দু-চরিএ কারি লোক বটেই ২০০৩ সালে গোনা গ্রাম এর নাম বলা অনিশ্চিত।
মৃত এক বেক্তির বড় মেয়েকে যৌন মিলনের কারনে গোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠের সালিশ বৈঠকে (১) কামরুল মোল্লাকে ৫০,০০০ টাকা জরিমানা করা হয় এবং দ্বিতীয় কানাচোয়া গ্রামে
(২)
বৃষ্টি নামে মাল্টিপারপাস কোম্পানিতে চাকরি করে ওই নারীর সাথে সরলতার সুযোগ নিয়ে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তুলে পরবর্তীতে হাতেনাতে ধরার পড়িলে অর্থ দন্ড জরিমানা করা হয়েছে
(৩) গোপন সূত্রে জানা যায় প্রথম স্ত্রীকে তালাক দিয়ে অন্য এক বেক্তির স্ত্রীকে বিভিন্ন প্রেমের ফাঁদে ফাঁদ ফেলে অন্য লোকের বিভাহিত স্ত্রীকে নিয়ে উদাও হয়ে যায়। বর্তমানে কামরুল মোল্লা দাম্পত্য জীবন চালিয়ে যাচ্ছেন।
(৪) গত ২০১৮ এ জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের নাগরিকদের ঘরে ৭৫০ টাকার মধ্যে বিদ্যুৎ পৌছিয়ে দেওয়ার কথা বলা হয়েছে ,এবং দালাল চক্রদেরকে দরিয়ে দেওয়ার কথা বলা হয়েছে কিন্তু সে কামরুল মোল্লা আওয়ামী লিগের পথ পদবী নিয়ে তিনি পেয়ারিখোলা গ্রাম থেকে প্রতি গ্রাহকদের কাছ থেকে মিটার প্রতি ৭৫০ টাকা না নিয়ে ২০,০০০ থেকে ৫০,০০০ হাজার টাকা প্রতি গ্রাহক থেকে অতিরিক্ত চাঁদা উত্তলন করা হয়েছে।স্থানীয় জনগণের মাধ্যমে বিষয়টি জানা যায়।
(৫) একজন নিরীহ মানুষ মসজিদের ইমামকে নিয়ে ফেসবুক পেজে লাইভে এসে ও ভিত্তিহীন বিষয় নিয়ে অপপ্রচার করেছ এই কামরুল মোল্লা সমাজের চোখে সে কি তাহা জনগণের বিবেকের আদালত।
তাহলে এই সেই কামরুল মোল্লা তিনি আওয়ামী লিগের সুনাম নষ্ট করছেন নাকি সুনাম অর্জন করছেন এবং সমাজের বিবিকের আদালত ও উপজেলার নেতা কর্মীদের বিবেকের আদালত দিয়ে এই কামরুল মোল্লার বিষয়টি খুঁতিয়ে দেখার জন্য সুদৃষ্টি কামনা করছি এবং তাহার বিষয়টি তদন্ত না করিলে আওয়ামী লিগের সুনাম নষ্ট হয়ে যাবে মনে করেন সচেতন মহল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here